পোস্টগুলি

মে, ২০২০ থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

পরকীয়া

ব্যাস্ত জীবনের চাদর মুড়ে পরকীয়া  হয়েছে জীবনের ফ্যাশন হটাৎ করে মনে ধরে অন্য কাওকে    অন্তরে জ্বলে প্রেমের আগুন  পরকীয়ার কশাঘাতে সংসারে  আজ অশান্তির দাবানল জ্বলে কে কাকে দেবে দোষ পরকীয়ার  প্রেমে পাগল নারী পুরুষ  উভয়ে মিলে  গোছানো সংসার ভেঙ্গে যায়  পরকীয়ার আজ বাজার রমরমা  পরকীয়া প্রেমের ক্ষুধা মেটায় প্রকৃত ভালোবাসায় পায়না ক্ষমা কিছু চাওয়া কিছু না পাওয়ার ব্যাথা ভালোবাসার ফুল ফোটায় পরকীয়ায় নীরবে খেলে যায় পরকীয়ার খেলা অবৈধ প্রেমে  ভালোবাসা খুঁজে পায়।
"পথ আমারে সেই দেখাবে যে আমারে চায় আমি অভয় মনে ছাড়ব তরী, এই শুধু মোর দায়" প্রভুকে স্মরন করে হাজার পথ যাবো পেরিয়ে বাঁধা বিঘ্ন দূর করে আঁধারকে যাবো কাটিয়ে সময় হোক যত‌ই খারাপ শক্ত হাতে ধরব হাল সামলে নেবো জীবন তরী হবে এক নতুন সকাল

ভয়ঙ্কর সেই রাত

প্রাকৃতিক দুর্যোগ  ভয়ঙ্কর সেই রাত কয়েকদিন আগের থেকেই বৃষ্টিটা শুরু হয়ে ছিলো,,,,,কিন্ত সবাই ভেবেছিলো বৃষ্টিটা কমে যাবে  ,,,বৈশাখের বৃষ্টি এতো সহজে কমবার নয় ,,,এদিকে অনিমার বিয়ের দিন এগিয়ে আসছে ১৬ ইএপ্রিল বিয়ে ,,,সবাই চিন্তিত মেয়ের বিয়ে বলে কথা,,,,,,,এক এক করে আত্মীয় স্বজন আসা শুরু হয়ে গেছে ,,,,, রীতিমত বিয়ের দিন এগিয়ে এলো তবে অন্যদিনের তুলনায় বিয়ের দিন  তেমন বৃষ্টিটা ছিলোনা বটে কিন্ত বেশ হাওয়া ছিলো,,,, তাই সবাই খুব আনন্দেই ছিলো  সাজগোজ হলো বর আসলো  বিয়ের লগ্নে বিয়েও ঠিকমত হলো সেদিন কোন বৃষ্টিও ছিলোনা,,,,সবাই খুব খুশি,,,,, গরমের থেকে একটু রেহাই পাওয়া গেছে  কিন্ত প্রকৃতির উপর কারো জোর নেই,,,,,,,,পরের দিন সকালবেলা সব নিয়ম অনুষ্ঠান শেষ হলো ,,বিকেল বেলামেয়ে জামাই এবার যাওয়ার পালা ,,,,, ঘরে সবার কান্নাকাটি শুরু হয়ে গেছে   ,,,,,,,,চারিদিক কালো করে  আবার সেই কালবৈশাখী  ঝড় শুরু হয়ে গেলো ,,,,এদিকে আত্মীয় স্বজন খুব বলাবলি করছে কি করে  মেয়ে জামাইকে বিদায় দিবে,,, মা বাবার তাদের ‌ও মন ভীষণ খারাপ,,,,,,,  চারিদিক যেন ভেঙ্গে পড়ছে সব যেন উড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছে ,,,,বাইরে বিয়ের

গোধূলি বেলা শেষে

পশ্চিমা আকাশে গোধূলি বেলা শেষে  কোপত কোপতির দেখা হলো অবশেষে নিভৃত একান্তে সারাদিনের ক্লান্তি ভুলে  দুজনেএক হয় গোধূলীর ঝরনায় শীতল আবেশে   ভালোবাসার পরশ পায় দুলিছে শ্যামল প্রকৃতি সৃষ্টির শীতল আবেশে  উড়ে যায় নীরবতার মেঘগুলো  মন খারাপের দেশে চেনা সূর্য্য মূখ লুকায়  আঁধারকে যায় দিয়ে দিন রাত্রির অবসান হয় আগামীর স্বপ্ন নিয়ে। ,

মনের ইচ্ছে

ইচ্ছেরা আজ দম বন্ধ  ,মনের ইচ্ছে মনে ইচ্ছেরা রয়ে যায় ইচ্ছে হয়ে জীবন যাপনে। ইচ্ছে করে কত না কিছু সব ইচ্ছে কি পূরণ হয় ইচ্ছে করে সময়টাকে আজ বদলে দিই  মনের  ইচ্ছে মনে রয়। ইচ্ছেদেরে‌ও যে ইচ্ছে হয় নিজের মত করে  বাঁচতে ইচ্ছেদের নেই স্বাধীনতা বেঁধে রাখি তাদের মনের  ইচ্ছেতে। উদাসীন ইচ্ছেরা আজ  প্রাণহীন পড়ে আছে হৃদয়ে  মনের মাঝে উঁকি দেয় ভয় যদি ইচ্ছেরা যায় হারিয়ে। তাইতো ইচ্ছে করে ইচ্ছে গুলোকে স্বপ্ন দিয়ে মুড়ি যখন তখন নিজেকে হারিয়ে ইচ্ছের রথে চড়ি। মনের ইচ্ছেরা হারিয়ে যায় আশা নিরাশার ভীড়ে তবুও যে পথ চলি‌ আগামীর ইচ্ছেকে সঙ্গী করে।  

বেঁচে থাকার লড়াই

জীবনের সাথে জীবনের চলছে লড়াই লড়াই ছাড়া জীবনের পরিচয় যে নাই রক্তে মাংসে গড়া  আমাদের মানব শরীর আজ আছে কাল নেই সুখের এই  নীড় কখন হাসি কখন কান্না বাঁচার সংগ্রাম অনিশ্চয়তার জীবন নেই মুল্য নেই দাম তবুও প্রতিদিন লড়াই চলে জীবনের সাথে  সুখের থেকে দুঃখের ভাগটাই বেশী  চলার পথে বেঁচে থাকার লড়াই  কিছু চাওয়া কিছু না পাওয়া নিজের মত করে জীবনটাকে মানিয়ে নেওয়া নদীর স্রোতের মত  প্রবাহমান এই  জীবন চায়না হারতে জীবনের কাছে লড়াই অন্তহীন জীবনের বাস্তবতা বড়‌ই কঠিন সংগ্রাম বার বারে জীবন মানে যুদ্ধ বেঁচে থাকা জীবনের তরে জীবনের খেলাঘরে আমরা যে সবাই  পুতুল  জয় পরাজয় হার জীত আছে অনেক ভুল আজ‌ও গোটা বিশ্ব করছে লড়াই  জীবন বাঁচাতে যতদিন আছে প্রাণ এই দেহে লড়াই চলবে জীবনের সাথে

ঋণী

ঋণী....…. আমরা  যে সবাই ঋণী কিন্ত আমরা কেও তা প্রকাশ করতে চাই না,,,,,যদি ছোট হয়ে যাই,,,,,  মানুষ সমাজ বদ্ধ জীব,,,,,,আমাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রতিনিয়ত আমরা বিভিন্ন মানুষের সাথে আমাদের পরিচয় হয়,,,,,, পথ চলতে আমাদের জীবনে নানা সমস্যার সন্মূখীন হোতে হয় ,,,,,,,  অচেনা অজানা মানুষের দ্বারা অনেক সময় উপকৃত হ‌ই কিন্ত সময়ের সাথে সেটা ভুলে যা‌ই তার বাড়ানো  সাহার্য্যের কথা,,,,,,,,,,,,, সব থেকে ঋণী আমরা আমাদের ইশ্বরের কাছে,,,,,এত সুন্দর পৃথিবীতে আমরা  মানুষ হয়ে জন্মেছি,,,,,,,ইশ্বর আমাদের প্রতি নিয়ত দয়া করিতেছেন,,,,,,,,,,,,, ,,,তথাপি আমরা কোনদিন স্বীকার করি কিনা জানি না,,,,,,,,,আমরা এই ধরণী মার কাছে ঋণী এত সুন্দর গাছপালা ফল ফুল যাদের জন্য আমরা আজ বেঁচে আছি  যে অক্সিজেন ছাড়া আমরা একমিনিট বাঁচতে পারবো না কিন্ত  এই প্রকৃতির উপর আমরা বারবার প্রহার করি,,, ,,,,,,তার ঋণের বোঝা আমাদের সকলের উপর সেটা আমরা কখন মানি না,,,,,,,,,,তার অস্তিত্ব ভুলে যাই,,,,,,,,যার জন্য  আমাদের প্রাণ বেঁচে থাকা,,,,,,, ছোট থেকে বড় হ‌ই  মা বাবার সাহার্য্য ছাড়া জীবনে এক পা চলতে পারি না ,,,,বড় হ‌ওয়ার সাথে সাথে  মা বাবাকে

কবি প্রণাম

হে রবি তোমার জন্ম বার্ষিকীতে  বাংলার দিকে দিকে  আজ খুশীর বাঁধন দেখা দিক বার বার তোমার  জন্মের এই শুভক্ষণ আজি হতে শত বর্ষ থেকে  হৃদয় জুড়ে আছো বাঙালীর একান্ত আপনার বাংলার গর্ভ গৃহে লেখা আছে   তোমার নামটা সোনার  তুমি আছো আমাদের  দুঃখ বেদনায়  আনন্দ খুশীতে  স্বপনে জাগরণে তুমি যে  সবার ইচ্ছের রঙ  স্বপ্নের প্রজাপতি তুমি আছো  জীবনধারার বিচিত্র কলতানে তুমি প্রিয় কবি সবার প্রাণের ঠাকুর  বিশ্বসাহিত্যের  দরবারে   দৃঢ তোমার আসন তুমি গেয়েছো মানবতা ও সাম্যের গান  তোমার কবিতায় পেয়েছি  নারীর সন্মান আজ চারিদিকে এতো কোলাহল  এত কলোরল অস্থির মনটা  মুক্তি চায় তোমার কবিতা ও গানে একের পর এক আঘাত ও অপমান  তোমাকেও যে কম সহ্য করতে হয়নি  তোমার   সাহিত্য জীবনে তবুও সেই আঘাত অপমানের বিষ  নিজকন্ঠে  ধারন করে  অমৃত বিলিয়েছো সকলের মাঝে প্রানের কবি  হৃদয়ে ছবি এই ভাবে  থাকবে তুমি চিরদিন আমাদের অন্তরের কাছে। জন্মদিনের শুভক্ষণে তোমার চরনে জানাই আমার শতকোটি প্রণাম। ©️উমা মজুমদার ২৫/৫/২০২০ 🙏🙏🙏🙏🙏🙏